09 Apr 2019   05:37:46 PM   Tuesday   BdST

স্বামীকে বোরখা পরিয়ে রেস্তরাঁয় নিয়ে গেলেন পাক তরুণী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ঝাঁ-চকচকে রেস্তরাঁয় বসে এক সুবেশ দম্পতি। ইনস্টাগ্রামে সে ছবিই পোস্ট করেছিলেন স্ত্রী। এবং সঙ্গে সঙ্গে তা ভাইরাল সোশ্যাল মিডিয়ায়। তবে কী এমন সে ছবি?

 

ছবিতে দেখা যায়, রেস্তরাঁয় স্ত্রীর পাশে বসে রয়েছেন স্বামী। তবে স্ত্রী নন, বোরখার আড়ালে রয়েছেন স্বামী। হ্যাঁ! এ ভাবেই পুরুষতান্ত্রিক সমাজের ছকবাঁধা লিঙ্গবৈষ্যম্যের প্রতি একটি স্পষ্ট বার্তা দিতে চেয়েছেন পাকিস্তানের এক তরুণী।

 

‘দ্য মিউলি ওয়েডস’ নামে ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে ওই দম্পতি সে ছবি পোস্ট করেছেন দিন দুয়েক আগে। ছবির সঙ্গে রয়েছে ওই তরুণীর বার্তাটিও। নিজেকে চেনা ছকে বাঁধা পুরুষের দৃষ্টিতে রেখে সে পোস্ট লিখেছেন তিনি। একেবারে ঝাঁঝালো ব্যঙ্গাত্মক ভঙ্গিতে নারী-পুরুষের সামাজিক ভেদাভেদের আসল ছবিটা তুলে ধরেছেন তাতে।

 

ওই তরুণী জানিয়েছেন, পাকিস্তানের একটি অভিজাত রেস্তরাঁয় এক রাতে খেতে গিয়েছিলেন তাঁরা।

 

ইনস্টাগ্রামের পোস্টে ওই তরুণী লিখেছেন, “এই আমার সুন্দরী হাজব্যান্ড। আপনারা দেখতে পাচ্ছেন না, কত সুন্দর সে। কেননা, তাঁর সৌন্দর্য লুকোনো রয়েছে। কারণ, আমিই এর একমাত্র হক্‌দার। ওর যা কিছু, ওর সাফল্য, স্বপ্ন— ওর সমস্ত জীবন আমার কাছে বাঁধা রাখা আছে। ওর দিকে কুনজর দেওয়াটা পাপ। তাই ওর ঘরে থাকাটাই আমার পছন্দের। কারণ, এ দুনিয়াটা তো ভাল নয়। যাই হোক, ও যখন আমার সঙ্গে বাইরে বার হয় তখন অবশ্য তা ঠিক আছে।”

 

তথাকথিত আধুনিক সমাজেও যে বহু ক্ষেত্রেই নারীর অবস্থান শুধুমাত্র সন্তান উৎপাদনকারী হিসাবেই গণ্য করা হয় তা বোঝাতে ওই পাক তরুণীর তীক্ষ্ণ মন্তব্য, “আমরা শুধু এখানেই খেতে আসি। কারণ, এখানে স্টেরয়েড ছাড়া চিকেন পাওয়া যায়। তা ছাড়া আমরা খুবই স্বাস্থ্য সচেতন। বিশেষ করে যখন জানি স্টেরয়েড দেওয়া চিকেন খেলে যৌনক্ষমতায় প্রভাব পড়তে পারে। আমি তা চাই না, কারণ ওর বেঁচে থাকার প্রধান উদ্দেশ্যই তো সন্তান উৎপাদন করা এবং আমাকে মা হতে দেওয়া। ফলে যাই হোক না কেন, আমি ওকে এখানেই খেতে নিয়ে আসব।”

 

এখানেই থেমে থাকেননি ওই তরুণী। নারীদের যে প্রায়শই যৌন হেনস্থার মুখোমুখি হতে হয়, সে ছবিটাই তুলে ধরেছেন তাঁর লেখনীতে। তিনি লিখেছেন, “বাইরে বেরোলে কী ভাবে যে নিজেকে লুকিয়ে রাখে ও, এটা আমার খুব ভাল লাগে। কেননা ও তো ‘খুলি তিজোরি’ (খোলা সিন্দুক)। আর আমি চাই না যে ও যৌন হেনস্থার শিকার হোক। আর যদি তা-ও হয়, তবে ভাগ্যের পরিহাস ভেবে তা স্বীকার করে নেব। সেই সঙ্গে আশা করব, হেনস্থাকারীর যেন শেষমেশ সাজা হয়।”

 

স্বাধীনতা ভোগ করার ক্ষেত্রেও যে নারী-পুরুষে প্রবল সামাজিক তফাত রয়েছে তা বোঝাতেও ব্যঙ্গকেই হাতিয়ার করেছেন ওই তরুণী। তাঁর কটাক্ষ, “আমি অবশ্য যেখানে খুশি যেতে পারি, যা খুশি করতে পারি।” তিনি আরও লিখেছেন, “আমি ওকে বাইরে কাজে যেতে এবং ড্রাইভিং করতে দিই। কারণ, আমি প্রবল ভাবে সমান অধিকারে বিশ্বাস করি।”

 

পোশাক নিয়েও যে প্রতিনিয়ত সমাজের চোখরাঙানি সহ্য করতে হয় নারীদের, তা-ও উল্লেখ করেছেন ওই পোস্টে। সেই সঙ্গে প্রকাশ্যে দুর্বলতা দেখানো যে পুরুষদের ক্ষেত্রে এক প্রকারের খামতি হিসাবে ধরা হয়, তা-ও বুঝিয়ে দিয়েছেন তিনি।