17 Mar 2014   09:00:23 PM   Monday   BdST

যে কারণে আত্মহত্যা করেছে ঠাকুরগাঁওয়ের সুচিত্রা

তানভীর হাসান তানু
ঢাকা, ১৭ মার্চ: ঠাকুরগাঁও সরকারি মহিলা কলেজে সুচিত্রা রায় নামে এক এইচএসসি পরীক্ষার্থীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোমবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে কলেজের হোস্টেল থেকে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় লাশটি উদ্ধার করা হয়। এ সময় লাশের পাশ থেকে একটি চিরকুট উদ্ধার করেছে পুলিশ।

চিরকুটে যে লেখা রয়েছে তা হলো, “জীবনে কিছু প্রশ্ন থাকে যার লেখা কখনও মুছে না, কিছু ভুল থাকে যা শোধরানো যায় না, আর কিছু এমন বন্ধু থাকে যাকে কখনো ভুলা যায় না।এমন জীবন তুমি করিবে গঠন মরণে হাসিবে কাঁদিবে এ ভুবন, সুখের আশা করছি কেন সুখ কি সবাই পায়, তবু মোরা সুখকে ভেবে প্রহর কেটে যায়’।

সুচিত্রা রায় পঞ্চগড় জেলার বোদা উপজেলার পাঁচপীর এলাকার গোবিন্দ রায়ের মেয়ে।

পুলিশ ও হোস্টেল সূত্রে জানা গেছে, সুচিত্রা সোমবার বিকেলে হল থেকে বের হয়ে সময়মতো ফিরে আসে রুমের দরজা বন্ধ করে দেয়। এ সময় তার তার সহপাঠিরা রুমে ঢুকতে চাইলেও দরজা খোলেনি সুচিত্রা। অনেক ডাকাডাকির পর দরজা না খুলতে পেরে জানালার পাশ থেকে সুচিত্রার ঝুলন্ত লাশ দেখতে পায় তারা। পরে হল কর্তৃপক্ষকে তারা বিষয়টি জানালে পুলিশ এসে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে।

সুচিত্রার রুমমেট তমা জানান, অনেকদিন আগে সুচিত্রার সঙ্গে একটি ছেলের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। বিষয়টি তার পরিবারে জেনে যাওয়ার ফলে কয়েক দিন ধরে দুশ্চিন্তায় ছিল সে। এ কারণে সে আত্নহত্যা করতে পারে।

ঠাকুরগাঁও সরকারি মহিলা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর আরজুমান্দ বানু জানান, সুচিত্রা বিজ্ঞান বিভাগের মেধাবী ছাত্রী ছিল। সে আসন্ন এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নিত। কি কারণে আত্নহত্যা করছে এখনো বলা যাচ্ছে না।

ঠাকুরগাঁও থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ খান জানান, খবর পেয়ে হল থেকে ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। তবে প্রেম ঘটিত কারণে আত্নহত্যা করেছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারণা করা হচ্ছে।



নিউজবুকবিডি/২০১৪