07 Apr 2019   01:27:04 PM   Sunday   BdST

জমি লিখে নিয়ে মাকে রাস্তায় বের করে দিল ছেলেরা

রহিম শুভ ঠাকুরগাঁও:  যখন মায়ের নামে জমি ছিল তখন যত্ন নিয়েছে মায়ের। জমি লিখে নেবার পরই উল্টো চিত্র। সেই মায়ের ঠাঁই হয়েছে এখন রাস্তায়। এমন ঘটনা ঘটেছে ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলায়।

 

মায়ের নামে থাকা ২২ বিঘা জমি নিজেদের নামে দলিল করে সেই মাকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ ওঠেছে ৩ ছেলের বিরুদ্ধে। ৩ ছেলের হাতে এমন আচরণের শিকার হওয়া মায়ের বাড়ি ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুর উপজেলার ভাতুরিয়া ইউনিয়নের মাগুড়া গ্রামে। কয়েক মাস ধরে মায়ের প্রতি শারীরিক ও মানসিক নির্যাতনসহ নানা ধরণের গালিগালাজ করে ওই তিন ছেলে।

 

শনিবার (৬ এপ্রিল) ভাতুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চত্বরে সাদা রঙের শাড়ির ওপর লাল রঙের কাপড় পড়ে বসে রয়েছে এক বৃদ্ধা। বয়স কম হলেও ৮০ বছর তো হবেই। মুখে বিড়বিড় করে কি যেনো বলছে। আর ঠিক ওই সময় এই প্রতিবেদক বৃদ্ধার কাছে গিয়ে জিজ্ঞাসা করেন, এখানে বিড়বিড় করে কি বলছেন? উত্তরে বৃদ্ধা বলেন, আমার নাম আজেদা খাতুন। স্বামী মৃত বজিরউদ্দীন ওরফে মুখধুরঝাটা। গ্রাম মাগুড়া। গত কয়েক মাস আগে আমার তিন ছেলে মোজ্জামেল, মফিজুল, হাপিজুল মিলে আমার কাছ থেকে ২২ বিঘা জমি তারা দলিল করে নিয়েছে। যার বর্তমান বাজার মূল্য প্রায় ১ কোটি টাকা।

 

এখানে কেন এসেছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, চেয়ারম্যানের কাছে এসেছি যদি চেয়ারম্যান কিছু টাকা দেয় তাহলে খাবার কিনে খাব।

 

স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ওই বৃদ্ধার স্বামী মৃত বজিরউদ্দীন ওরফে মুখধুরঝাটা এর প্রায় দেড়শ বিঘা জমি রয়েছে। তিন ছেলে মিলে ভাগ করে চাষ করে।

 

তারা আরও বলেন, ওই এলাকার সব চেয়ে ধনী ব্যক্তি মৃত বজিরউদ্দীন ওরফে মুখধুরঝাটা। এত জায়গা-জমি থাকার পরেও যদি তার ছেলেগুলো না দেখে আমাদের কি করার আছে।

 

এ বিষয়ে বৃদ্ধার বড় ছেলে মোজ্জামেলের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, ‘আমিতো একাই তার দুধ খায়নি। আরও দুই ছেলে রয়েছে তাদেরকে ফোন দেন। আমি কাজে ব্যস্ত রয়েছি। দয়া থাকলে ভ্যানে করে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।’

 

এ বিষয়ে ভাতুরিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান উপস্থিত হয়ে জানান, আমি যতদূর পারি সহযোগিতা করবো।

জেলা-উপজেলা বিভাগের অন্যান্য সংবাদ »