08 Jul 2019   05:03:24 PM   Monday   BdST

জনসম্মুখে শাস্তি দেওয়া হোক হারুনকে, ফেসবুক উত্তাল

অনলাইন  : ছাদ ঘুরিয়ে দেখানোর কথা বলে সামিয়া আফরিন সায়মাকে অষ্টম তলার লিফট থেকে ছাদে নিয়ে যায় হারুন অর রশিদ। সেখানে নবনির্মিত ৯ তলার ফ্ল্যাটে সায়মাকে ধর্ষণ করে। এরপর নিস্তেজ অবস্থায় পড়ে থাকে সায়মা। মৃত ভেবে সায়মার গলায় রশি দিয়ে টেনে রান্নাঘরের সিঙ্কের নিচে রেখে পালিয়ে যায় হারুন।

 

শিশু সায়মা হত্যার ঘটনায় রবিবার দুপুরে ঢাকা মহানগর পুলিশের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এভাবেই রোমহর্ষক বর্ণনা দেন অতিরিক্ত কমিশনার (ডিবি) আব্দুল বাতেন।

 

রাজধানীর ওয়ারীর বনগ্রামের স্কুলছাত্রী সামিয়া আফরিন সায়মাকে (৭) ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় ধর্ষক হারুন অর রশিদকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আজ রবিবার কুমিল্লার তিতাস থানার ডাবরডাঙ্গা এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। এদিকে ধর্ষক হারুনের ফাঁসির দাবিতে উত্তাল সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম। দাবি উঠেছে, জনসম্মুখে তার শাস্তির ব্যবস্থা করা হোক।

 

শিশু সামিয়া আফরিন সায়মাকে ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় মোহাম্মদ সাজিদুর রহমান নামের একজন তার ফেসবুক স্ট্যাটাসে লিখেছেন, ২০১২ সালে পর থেকে আমি অনেকবার বলেছি আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা নাহলে দেশে অরাজকতা চলতেই থাকবে। আজ সায়মা ভিকটিম হয়েছে কাল আমার সন্তান হবে। এভাবেই কি দেশ চলতে পারে। যে দেশে ধর্ষক, ফাঁসির আসামি এবং খুনি হাইকোর্ট থেকে জামিন পায় সেদেশে এ সব ঘটনা ঘটা অসম্ভব না। রাতের আধারে ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতায় এসে যদি ভালভাবে আইন প্রতিষ্ঠা করত আমি ব্যক্তিগতভাবে তাদেরকে সর্মথন দিতাম। কিন্তু তারা কি করছে? সুশীল সমাজের প্রতি অনুরোধ, আপনারা চুপ করে বসে থাকবেন না। প্রতিবাদ করেন। পার্শ্ববর্তীদেশ ভারতে ধর্ষকের বিচার হয়েছে। একদিন আপনাদেরকে আল্লাহর কাছে জবাবদিহিতা করতে হবে। আমরা এ ধরনের ন্যাক্কারজনক ঘটনা দেখতে চাই না। সুশাসন দেখতে চাই। সবাই যাতে আইনের সুফল ভোগ করতে পারে। রক্ষক যেন ভক্ষক না হয়। এ রকম ঘটনা প্রতিদিন পত্রিকা খুললেই দেখতে পাই। আজ আমরা যারা এরশাদ সাহেবকে স্বৈরশাসক বা জাতীয় বেঈমান বলি তার আমলে ও এরকম ঘটনা নিত্যদিন ঘটে নাই। মুনীরের ফাঁসি তার উজ্জ্বল উদাহরণ। দয়া করে সুষ্ঠু বিচার নিশ্চিত করুন। না হলে আগামী প্রজন্ম বর্তমান সরকারকে ঘৃণার চোখে দেখবে।

 

মো. রাসেল আহমেদ লিখেছেন, কি দোষ ছিল সায়মা নামের বাচ্চাটার তাকেও ধর্ষণ। ১০ মিনিটের ব্যবধানে একই ভবনে ৮ তলায় হত্যা করা হয়েছে .. এক কুলাঙ্গার আটক! ধর্ষক কুলাঙ্গারের ফাঁসি চাই।

 

সৈয়দ লিখেছেন, ধর্ষণ হচ্ছে, ধর্ষককে ধরা হচ্ছে বিচার হচ্ছে জেল-ফাঁসি দেয়া হচ্ছে কিন্তু ধর্ষণ যেন দিন দিন বেড়েই চলছে!
ফাঁসি নয় জেল নয় এই কুত্তার বাচ্চাকে এমন কোন অমানবিক শাস্তি দেওয়া হউক যাতে একবার ধর্ষণের কথা মনে আসলে ১০ বার ওর চেহারা চোখের সামনে ভেসে উঠে! ক্রসফায়ার বা ফাঁসি হলে কুত্তার বাচ্চাটা তাড়াতাড়ি মরে যাবে। ওরে বাঁচিয়ে রেখে তিলে তিলে মারা হোক, প্রয়োজন হলে দেশের একেকটা বিভাগে একেক দিন ওকে নিয়ে শরীরের একেকটা অঙ্গ কাটা হউক জনসম্মুখে। ধর্ষণ বন্ধ হতেই হবে!

 

সামিয়া রহমান লিখেছেন, ফাঁসি চাই।

 

সৈয়দ ফাহাদ আহমেদ লিখেছেন, পুরো ফেসবুক লালকার্ডময়... আর এদিকে ফুটফুটে মামনি শিশু সায়মাকে-ধর্ষণ শেষে গলায় রশি পেঁচিয়ে হত্যা করেছে জানোয়ার- হারুন (গ্রেপ্তার)। আওয়ামী লীগ সরকারকে যদি জনগণের কাছে একটি প্রশংসনীয় সরকার হিসেবে তুলে ধরতে চান। এটাই বড় সুযোগ, যত দুর্নাম বাঙালি ভুলে যাবে। বাঙালিদের সামান্যতেই খুশি করা যায়, বেশি কিছু লাগে না। এই মানুষ নামের জানোয়ারগুলোকে জনসম্মুখে ফাঁসি দেয়ার মাধ্যমেই আওয়ামী লীগ সরকারকে মানুষের কাছে নতুন করে উপস্থাপন করতে পারবেন। আশা করি, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়ে ভবিষ্যতের ধর্ষকদের মনে কম্পন সৃষ্টি করবেন।

 

মো. কাজল লিখেছেন, সায়মা ধর্ষণকারীর প্রকাশ্যে ফাঁসি দেওয়া হোক। তাহলে শান্তি পাবে ওর আত্মা। আল্লাহ যেনো সায়মাকে জান্নাতবাসী করুক। আমিন।

 

তানিয়া কথা লিখেছেন, আমার পরীর মতো মেয়েটাকে যে কষ্ট দিয়ে মেরেছে তার ৬ মাসের মধ্যে ফাঁসি চাই।