22 Feb 2014   02:53:03 PM   Saturday   BdST

কোন ব্যর্থতাই আমাকে হতাশায় ডুবাতে পারেনি

রওশন পারভেজ, UAE Ministry of Foreign Affairs থেকে
 ঢাকা, ২২ ফেব্রুয়ারি : সফলতার আশায় কোন ব্যর্থতাই আমাকে হতাশায় ডুবাতে পারেনি। যারা হতাশাগ্রস্থ তাদের জন্য এই লেখাটা।


জীবনের শুরুতেই এক হোচট খেয়ে বাবার সাথে রাগারাগি করে গৃহত্যাগ। চলে আসলাম বাবার একসময় চাকুরিস্থল আমার জন্মস্হান ঠাকুরগাঁও। শুরুতেই প্রাইভেট টিউশনি দিয়ে জীবন সংগ্রাম, তাতে পেট চলেতো জীবন চলে না। একটু ভালোভাবে বেঁচে থাকার প্রত্যাশায় আর্টগ্যালারির মোরে দিলাম অনন্যা কনফেকশনারি এবং বৈশাখী কুরিয়ার সার্ভিস।

 

রাজনীতি করতে যেয়ে ব্যবসায় লোকসান, অতএব ব্যবসা এখানেই শেষ। হতাশাগ্রস্থ না হয়ে ঢাকা অভিমুখী। সেখানেও প্রাইভেট পড়ানো দিয়ে যাত্রা শুরু। ৯৬-২০০১ খাদ্যমন্ত্রী আমির হোসেন আমুর PA হিসাবে চাকরি পেলাম। ভালোই চলছিল।

 

হঠাৎ কালো টাকার প্রতি দুর্বলতা আসাতে একে একে হারালাম কাছের অনেক মানুষকেই। চলে গেলাম নেশার জগতে, হয়ে গেলাম নেশাগ্রস্থ এক যুবক। নেশাও আমাকে হারাতে পারেনি। নিজের অদম্য চেষ্টাতে কোনরকম চিকিৎসা ছাড়াই ফিরে এলাম স্বাভাবিক জীবনে, স্বপ্নের জগৎ থেকে বাস্তবজগতে।

 

নিজর ব্যার্থতাকে ঢাকতে চলে গেলাম ভারতে। সেখানে ৩ বছর থেকে শুন্য হাতে বালিয়াডাঙ্গি। বসে না থেকে শুরু করলাম কৃষি। ২৫ বিঘা জমিতে তরমুজের চাষ শুরু করলাম কোন পুঁজি ছাড়াই। বাম্পার ফলন কিন্তু নিজে ভোগ করতে পারলাম না। এখানেও হতাশ হইনি। বিয়েও করলাম বালিয়াডাঙ্গি। বিয়ে করার পর ২ বছর খুব কষ্টে দিন পার করলাম। কষ্ট সহ্য করতে না পেরে চলে গেলাম নিজ গৃহে। ওখান থেকে শুরু করলাম চাকরি জীবন।

 

হঠাৎ এক বিশেষ চ্যানেলে পেয়ে গেলাম সুখের ঠিকানা। চাকরি পেলাম UAE Ministry of Foreign Affairs এ। ছোট পোষ্ট কিন্তু সম্মান অনেক। এখন আমি Wife, মেয়ে এবং ছেলেকে নিয়ে মানসিক সুখে আছি। একটি মনেরমতো বাড়ি করতে পারলেই আল্লাহর রহমতে আমি পরিপূর্ন সুখি। জীবনে যা চেয়েছি সবই পেয়েছি, তবে অনেক কিছু হারায়ে এবং অনেক কষ্টে।

 

 

নিউজবুকবিডি/এবি.এম সুজন/২০১৪