03 Aug 2019   02:45:14 PM   Saturday   BdST

ঈদে সবাইকে বাড়ি যাওয়ার আহ্বান ওবায়দুল কাদেরের

বিশেষ প্রতিনিধি: ডেঙ্গু জ্বরকে ভয় না পেয়ে আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ঈদুল আজহা উদযাপন করতে গ্রামের বাড়িতে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। এ ক্ষেত্রে সবাইকে সতর্ক থাকার আহ্বানও জানিয়েছেন তিনি।
 
এ বিষয়ে তার বক্তব্য, ‘একটা মহল আতঙ্ক ছড়াচ্ছে, যাতে ঈদের সময় মানুষ বাড়িঘরে না যায়। বাড়িঘরে কেন যাবে না? সবারই ইচ্ছা আছে পরিবার-পরিজন নিয়ে আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ঈদ উদযাপন করার। সবাই যাবেন, কিন্তু সতর্ক থেকে ঈদ উদযাপন করবেন। ডেঙ্গু সম্পর্কে অনেক বিজ্ঞপ্তি আপনারা শুনেছেন, টেলিভিশনে নিয়মিত প্রচার হচ্ছে।’
 
আজ শনিবার রাজধানীর ফার্মগেটে আনন্দ সিনেমা হলের সামনে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামূলক এক কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে এ আহ্বান জানান সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
 
এর আগে চিকিৎসকরা বিভিন্ন সময় বলে আসছেন, ডেঙ্গু জ্বর নিয়ে গ্রামে গেলে ডেঙ্গুর ভয়াবহতা বাড়তে পারে।
 
অতিকথন থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমরা কথা বলব না, কাজ করব। আমি সবাইকে বলব, এই সময় অত্যন্ত সংবেদনশীল। এই সময় অতিকথন দেশের জন্য খারাপ ফল বয়ে আনতে পারে। অতিকথন থেকে আমি দায়িত্বশীল সবাইকে বিরত থাকার আহ্বান জানাচ্ছি।’
 
ডেঙ্গু বর্তমানে সারাবিশ্বের সমস্যা বলেও দাবি করেন ক্ষমতাসীন দলের এ সাধারণ সম্পাদক। তার ভাষ্য, ‘ফিলিপিনসে (ফিলিপাইন) হাজার খানেকের মতো লোক মারা গেছে, লক্ষাধিক মানুষ আক্রান্ত। এটা ভিয়েতনামের রোগ, এই রোগ ফিলিপিনসের রোগ। প্রতিবেশী দেশ ভারত ও মিয়ানমারে এই রোগ। চীনেও আছে, থাইল্যান্ডেও ভয়ঙ্করভাবে এই রোগ বিস্তার লাভ করেছে।’
 
সারাদেশের চিকিৎসকদের নিয়ে একটি মনিটরিং সেল গঠন করা হচ্ছে বলেও সেতুমন্ত্রী। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমরা সারাদেশে চিকিৎসকদের দিয়ে একটি মনিটরিং সেল গঠনের একটা প্রক্রিয়া শুরু করেছি। ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীদের যাতে চিকিৎসা হয়, সেজন্য রোগীদের শনাক্ত করা, রক্ত পরীক্ষা করা, তাদের চিকিৎসা ঠিকমতো হচ্ছে কি-না, কোথাও অবহেলা হচ্ছে কি না–এসব বিষয়গুলো প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে চিকিৎসকদের এই সেল সার্বক্ষণিকভাবে মনিটরিং করবে। এ নিয়ে আমরা বৈঠক করেছি। আজকে আবার বৈঠকে তা চূড়ান্ত রূপ নেবে।’
 
কেন্দ্রীয়ভাবে ডেঙ্গু প্রতিরোধ ও সচেতনতামূলক তিন দিনের কর্মসূচি হাতে নিয়েছে আওয়ামী লীগ। এই কর্মসূচির আজকে ছিল তৃতীয় ও শেষ দিন। ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আনুষ্ঠানিকভাবে তিন দিনের কেন্দ্রীয় কর্মসূচি এখানে শেষ হলেও ঢাকাসহ সারাদেশে ডেঙ্গু নির্মূল না করা পর্যন্ত ততদিন পর্যন্ত এই পরিচ্ছন্নতা, সচেতনামূলক কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।’
 
এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, সাংসদ আসলামুল হকসহ অনেকে।